তারুন্যের অনুপ্রেরণা উদ্যমী সমাজকর্মী মোহাম্মাদ ইউসুফ



MD-Yousuf-Hossain02

শেখ মোহাম্মাদ ইউসুফ হোসাইন

 এ.সি মান্নান।।

বাংলাদেশ আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। এদেশে রয়েছে লক্ষ লক্ষ উদ্যমী যুবক, সমৃদ্ধ সংস্কৃতি, সুজলা সুফলা শস্য ভাণ্ডার, রাজনৈতিক ঐতিহ্য, বৈশ্বিক বাণিজ্য সহ তারুন্যের অপার সম্বাভনা। এতো কিছু থাকতেও আমরা এখনও উন্নত রাষ্ট্রের নামের তালিকার নিজেদের স্থান তৈরি করতে পারিনি। একটি জাতিকে পরিবর্তন করার সকল ধরণের যোগ্যতা আমাদের যুব সমাজের মধ্যে রয়েছে।

তারুন্যের এই দেশ হল নোবেল বিজয়ী প্রোফেসর মোহাম্মাদ ইউনুস এর দেশ যেখানে লক্ষ লক্ষ যুবক প্রতিনিয়ত তাদের দেশের জন্য কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে তরুণ উদ্যমী একজন সমাজকর্মী শেখ মোহাম্মাদ ইউসুফ হোসাইন এর কথা বলা যেতে পারে।

তরুণ মোহাম্মদ ইউসুফ জানেন কীভাবে একটি দেশের উন্নয়নের জন্য যুবকদের কাজে লাগানো যায়। তিনি একজন আত্ম উদ্যমী সমাজ কর্মী হিসেবে দেশের বিভিন্ন্য ধরণের সমাজ সচেতনতামূলক কর্মকান্ডের সাথে সর্বদা নিজেকে উজাড় করে আসছেন।

মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন “ তুমি ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে যা দেখ সেটা কখনো স্বপ্ন হতে পারে না, স্বপ্ন হল সেটা যা তোমাকে ঘুমাতে দেয় না”। সমাজ কর্ম হল আমার বাল্যজীবনের স্বপ্ন যাকে বাস্তবে রূপদান করার আগ পর্যন্ত সে স্বপ্ন আমাকে ঘুমাতে দিবে না। যে সকল যুবক এখনও স্বপ্নের হাতছানি পায় নি তাদের সাথে একত্রিত হয়ে তাদের মাঝে স্বপ্নের সঞ্চার করাই হল তার মূল লক্ষ।

মোহাম্মদ ইউসুফের এই স্বপ্নযাত্রা সূচনা হয় যখন তিনি ২০১০ সালে প্রথম বারের মতো  বাংলাদেশের একটি নিবন্ধিত এন.জি.ও “সহায় উন্নয়ন সংস্থার” সাথে যুক্ত হন। বর্তমানে তিনি সহায় উন্নয়ন সংস্থার প্রধান নির্বাহী অফিসার হিসেবে কাজ করে আসছেন।

উদ্যমী একজন সমাজকর্মী হয়ে উঠা সর্ম্পকে তিনি বলেন “যখন আমার বয়স ১৮, তখন থেকে আমি অসহায় মানুষের জন্য কিছু করার প্রয়োজন অনুভব করতে শুরু করি এবংআমি বুঝতে পারি এই অসহায় লোকদের জন্য কিছু করার সর্ব-উত্তম পন্থা হল কোন সামাজিক সংস্থার সাথে যুক্ত হওয়া যারা সমাজের দুস্থ ও অসহায় লোকদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

তারই ফলশ্রুতিতে মোহাম্মদ ইউসুফ “রাইট নাউ ভলান্টিয়ার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ” নামে একটি ভলান্টিয়ারি সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন, যার প্রধান লক্ষ ও উদ্দেশ্য হল নারী ও শিশুদের মৌলিক অধিকার গুলোকে সংরক্ষণ করা। বর্তমানে বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারত ও নেপালে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এসব দেশে রাইট নাউ ভলান্টিয়ারগণ নারী ও শিশুদের অধিকার রক্ষার্থে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

yyy copy

“ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ সামিট ২০১৫” তে অন্যান্যদের সাথে ইউসুফ

রাইট নাউ নিয়ে শেখ মোহাম্মাদ ইউসুফ হোসাইন এর স্বপ্ন হল একদিন এই পৃথিবী হবে ভলান্টিয়ারদের দ্বারা পরিচালিত একটি পৃথিবী, যেখানে রাইট নাউ এর অভাবনীয় অবদান থাকবে। বর্তমানে রাইট নাউ এর রয়েছে প্রায় পাচঁ লক্ষ অভিজ্ঞ ও উদ্যমী সদস্য যারা ঢাকা, মায়মনশিংহের পাশাপাশি কলকাতা ও নেপালে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

শেখ মোহাম্মাদ ইউসুফ হোসাইন ফিনান্স এর উপরে BBA সম্পন্ন্য করেন বর্তমানে MBA সম্পন্ন করার পরিকল্পনা করছেন। তার ভবিষ্যৎ স্বপ্ন নিয়ে তিনি বলেন, “আমি এদেশে একটি বিস্তৃত যুব সম্প্রদায় চাই যারা এদেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং নিয়ে যাওয়ার যোগ্যতা রাখবে”।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে রাইট নাউ এর অভাবনীয় সাফল্যে বেশ কয়েকবার দেশে ও বিদেশে এর প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মাদ ইউসুফ বিভিন্য ধরণের সম্মাননা পদক লাভ করেন। তার এই অভাবনীয় সাফল্যের ব্যাখ্যায় তিনি বলেন “যখন কোন কাজের জন্য তুমি নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করবে এবং তার জন্য কাজ করে যাবে তাহলে তুমি ধরে রাখতে পার সময়ের ব্যাবধানে কোন একদিন তুমি তার পুরুষ্কার পাবেই। এবং তার এই সাফল্য তাদের জন্য উৎসর্গ করেছেন যারা সূচনালগ্ন থেকে রাইট নাউ এর সাথে ছিল ,আছে এবং থাকবে।

মনিপুরের ইম্ফাল এ অনুষ্ঠিত “ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ সামিট ২০১৫” তে শেখ মোহাম্মাদ ইউসুফ হোসাইন বাংলাদেশের প্রতিনিধি  হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। যার আয়োজক ছিল ক্লাব ২৫ ইন্টারন্যাশনাল মনিপুর এবং ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুথ কমিটি (আই.অয়াই.সি)। এবছরের মূল পতিপাদ্দ্য বিষয় ছিল “ইয়ুথ ফর গ্লবাল এমপাওয়ারমেন্ট”। সামিট’এ মোহাম্মদ ইউসুফ “গ্লবাল নেটওয়ার্কিং” এর উপরে একটি বক্তব্য উপস্থাপন করেন। যেখানে তিনি বলেন “ শুধুমাত্র পারস্পরিক যোগাযোগের মাধ্যমেই আমরা পারি একটি পারস্পরিক সম্পর্কপুর্ন পৃথিবী গড়ে তুলতে যার মাধ্যমে আমরা যুবকরাই হবো আমাদের পৃথিবীর কর্মি এবং পরিচালক”।

Facebook Comments
It's only fair to share...Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
0