এখন হাতের নাগালে হুবহু মানুষ বানানোর প্রযুক্তি!



চীনের বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্লোনিং কারখানার বিজ্ঞানীদের দাবি: জিন ক্লোনিং করে একজন মানুষের হুবহু আরেকজন তৈরি করা খুব বেশি কঠিন কিছু নয়। তাঁদের মতে প্রজুক্তির উন্নতি এতটাই হয়েছে যে মানুষের রেপ্লিকা তৈরি করা সম্ভব।

সম্প্রতি বিশ্বের বৃহত্তম ক্লোনিং কারখানা চালু করার ঘোষণা দিয়েছে, চীনে এক জোট হয়ে বায়োটেকনোলজি প্রতিষ্ঠান বয়ালাইফ ও দক্ষিণ কোরিয়ার সুয়াম বায়োটেক।সো

Big Cloning Mil 2বয়ালাইফের চেয়ারম্যান শু শিয়াওচাম বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘মানুষ ক্লোন করার প্রযুক্তি তাঁদের কাছে আছে; তবে মানুষের প্রতিক্রিয়ার কথা ভেবে আমরা এ পথে হাঁটছি না।’

মানুষের রেপ্লিকা তৈরি প্রসঙ্গে শিয়াওচাম বলেন, মানুষ তৈরির অনুমোদন যদি মেলে তবে বয়ালাইফের চেয়ে উন্নত প্রযুক্তি আর কারও কাছে নেই। তবে এখন বয়ালাইফ কোনো মানুষের নকল তৈরি করছে না। প্রতিষ্ঠানটি মানুষের প্রতিক্রিয়ার কথা ভেবেই স্বপ্রণোদিত বিধিনিষেধ মেনে চলছে।

শিয়াওচাম জানান, আগামী বছর নাগাদ চীনের তিয়ানজিনে নির্মাণ করা ক্লোনিং কারখানা উৎপাদন শুরু করা যাবে। সেখান থেকে উৎপাদন করা হবে ভ্রূণে জিনগত পরিবর্তন ঘটিয়ে পোষা প্রাণী, পুলিশের কাজে লাগে এমন কুকুর, ঘোড়দৌড়ের ঘোড়া, মাংস উৎপাদনকারী গরু প্রভৃতি। তিনি বলেন, চীনের কৃষকেরা বাজারে গরুর মাংসের চাহিদা মেটানোর মতো গরু উৎপাদন করতে পারছেন না।ওই কারখানাটির গরু উৎপাদন দিয়েই যাত্রা শুরু হবে।

ভবিষ্যৎ প্রসঙ্গে চীনের এই প্রযুক্তি উদ্যোক্তা বলেন, ভবিষ্যতে সামাজিক নিয়মকানুনের পরিবর্তন আসতে পারে। বর্তমানে কেবল মা-বাবা মিলে সন্তান জন্ম দিতে পারেন। ভবিষ্যতে বাবা বা মা মিলে কিংবা স্বয়ংসম্পূর্ণভাবে একা একা সন্তান নিতে পারবেন। এটা তাঁদের পছন্দের ওপর নির্ভর করবে।

Facebook Comments
It's only fair to share...Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
0