সুইডেনে পড়তে চাইলে



sswedenThe Swedish Institute Study Scholarships—SISS দ্যা সুয়েডিস ইনিস্টিটিউট স্টাডি স্কলারশিপ সংক্ষেপে এসআইএসএস স্কলারশিপ নামে পরিচিত। এই স্কলারশিপের আবেদন করতে হবে ডিসেম্বরের মধ্যেই। প্রস্তুতির সময় এখনই। সংক্ষেপে লিংকসহ নিচে উল্লেখ করা হলো।

#স্কলারশিপটি দেওয়া হয় মাস্টার্স স্টাডির জন্য। দুই বছর (চার সেমিস্টার) স্কলারশিপ দেওয়া হবে। প্রথমে এক বছরের (দুই সেমিস্টার) বৃত্তি দেওয়া হয়। পরবর্তীতে কোর্স ও সেমিস্টারের অগ্রগতির ওপর ভিত্তি করে দ্বিতীয় বছরের বৃত্তি দেওয়া হয়। কারণ অনেকে যথাসময়ে কোর্স ও পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করতে ব্যর্থ হয়। প্রতি মাসে নয় হাজার সুইডিশ ক্রোনর বৃত্তি দেওয়া হয়। ভ্রমণের জন্য দেওয়া হয় এককালীন ১৫ হাজার সুইডিশ ক্রোনর।

#বাংলাদেশের জন্য কতটি স্কলারশিপ দেওয়া হবে সেটা উল্লেখ করা থাকে না।

#আবেদনের প্রথম ধাপেই একটি সাইট সম্পর্কে খুব ভালো করে জেনে নেওয়া উচিত। সেটি হলো <https://www.universityadmissions.se/>; এখান থেকেই শুরু করতে হবে। প্রথমেই এই সাইটে একটি অ্যাকাউন্ট করতে হবে। এটা আবশ্যক (Must)। নিজ নিজ অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে আবেদনসহ সকল প্রকার তথ্যাদি পাঠাতে হবে হবে।

#আবেদন করতে হবে দুইটি রাউন্ডে। প্রথম রাউন্ড আবেদনের সময় ১-১৫ ডিসেম্বর। প্রথম রাউন্ডে উত্তীর্ণ হলে দ্বিতীয় রাউন্ডে আবেদন করতে হবে ১-১৩ ফেব্রুয়ারি। তারপর যারা বৃত্তি পাবেন তাদের নাম প্রকাশ করা হবে এপ্রিলে (ইমেইল করা হবে)। সেশন (Autumn session) শুরু হবে আগস্ট ২০১৬ থেকে।

#প্রথম রাউন্ডে উত্তীর্ণ হলে দ্বিতীয় রাউন্ডে আবেদনের পূর্বে আবেদন ফি বাবদ ৯০০ সুইডিশ ক্রোনর দিতে হবে। ব্যক্তিগত ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড না থাকলেও, ব্যাংকের মাধ্যমে আবেদনের টাকা পে/ট্রান্সফার করা যাবে।

#চারটি ডকুমেন্ট প্রস্তুত রাখতে হবে এখনই: মোটিভেশন লেটার/কাভার লেটার (Motivation Letter), CV, দুইটি রেফারেন্স লেটার ও পাসপোর্ট (স্ক্যান)।

#CV হতে হবে ইউরোপিয়ান ফরম্যাটে। যেটা বলা হয় ইউরোপাস (Europass) ; এই ফরম্যাটে সিভি তৈরির জন্য অনুসরণ করুন এই লিংক: <https://europass.cedefop.europa.eu/en/documents/curriculum-vitae>

#মোটিভেশন লেটার ও রেফারেন্স লেটারের ফরম্যাট নিজের ইচ্ছেমতো হলে হবে না। সেটার জন্যও নির্দিষ্ট ফরম্যাট (SI format) অনুসরণ করতে হবে। নির্দিষ্ট ফরম্যাট খুঁজে নিন এই লিংকে: https://eng.si.se/?s=Motivation+letter&submit=Search

#IELTS/TOFEL ছাড়াও অনেক প্রোগ্রামেই আবেদন করা যায়। সে ক্ষেত্রে আপনার স্টাডি অব মিডিয়াম (স্নাতক/স্নাতকোত্তর) ইংরেজিতে হতে হবে এবং সেটির প্রমাণ লাগবে। বিভাগের প্রধান কর্তৃক স্বাক্ষরিত পত্রের মাধ্যমে সেটি নিশ্চিত করতে হবে।

#স্কলারশিপ পেতে হলে কমপক্ষে দুই বছরের কাজের অভিজ্ঞতা প্রয়োজন। কর্ম অভিজ্ঞতা শুধু চাকরি নয়; বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী কাজ, ইন্টার্নশিপ কিংবা সামাজিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে লিডারশিপও হতে পারে।

#SI স্কলারশিপ বিষয়ক বিস্তারিত আরও জানতে হলে অনুসরণ করতে হবে যে লিংক: <https://eng.si.se/areas-of-operation/scholarships-and-grants/>
সুত্রঃ ইন্টারনেট।

Facebook Comments
It's only fair to share...Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
0